fbpx
September 22, 2020

Ruposhi Bangla TV

Nation's First IPTV

বাংলাদেশের দালাল – তারেক চৌধুরী

সংক্ষিপ্ত পর্ব- ১

সবাই থাকে দূরে ব্যাস্থতার চাদর মুড়ে। জীবন তো একটাই, ব্যাস্থতার জন্যই জীবন আবার জীবনের জন্যই ব্যাস্থতা। তবুও যার যার ব্যাস্থতার অবশন্য কাটিয়ে সাময়িকের জন্য বিশেষ দিন গুলোতে আমরা বন্ধুরা সবাই যখন এক সঙ্গে মিলিত হতাম, আহ! জীবন কতোইনা সুন্দর।

অতঃপর, বিকেলের আড্ডায় নানান সুখ, দুঃখের গল্প, একে অপরের প্রতি ভিবিন্ন রাগ-অভিমানের অভিযোগের দ্বিদা-দ্বন্দে, কথামালার ছন্দে-আনন্দে,কেউ আবেগীমনে পারুকে হারিয়ে দেবদাস সেজে হুতাশ,আবার কেউ ট্রেনে পরিচয় হওয়া সেই নামহীন মেয়েটির গল্পতেই বিভোর। এ যেনো পিছিয়ে পরার আত্মাদের জবানবন্দি।

ফেসবুক প্রসঙ্গ আসতেই, এক বন্ধু প্রশ্ন করে বসলো।
-আচ্ছা তারেক, কে এই
আশরাফুল আলম খোকন ?
-তোর ওয়ালে প্রায় সময় ওনার লেখা দেখি।
-তোর সঙ্গে পরিচয় আছে?
-ওনার সম্পর্কে কতোটু জানিস?
– ওনার লেখা গুলো পড়লে বুঝা যায় লীগের এক নাম্বার দালাল, দেশের সব কিছু লুট করে খাচ্ছেন।

-বন্ধর মুখে এমন সমালোচনা শুনার পর আমার একদম খারাপ লাগেনি, কারন খোকন ভাই-ই বলেছিলেন।

“সমালোচনা সবাই করতে পারে, সমালোচনা করতে কোনো যোগ্যতার প্রয়োজন লাগেনা”

মানুষ নির্দিষ্ট কোন রাসায়নিক পদার্থ নয় বা কোন বিশেষ ব্র্যান্ডের বিশেষ যন্ত্র নয় যে সকলে একই ধরণের আচরণ করবে। মানুষ ইউনিক বা অনন্য, প্রত্যেকটা মানুষ তার নিজের মতো। অন্য কারো সাথেই সে তুলনীয় নয়।

আমার জীবনের সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো গিয়ে, আমি হাসতে পারিনা। হাসি মুখ না থাকার ফলে জীবনে অনেক কিছু থেকে আমি বঞ্চিত হয়েছি।

গুমরা মুখ, তবুও অনেক চেষ্টায় একটু মুচকি হেসে বন্ধুকে বল্লাম
– দালাল বুঝি?

বন্ধুঃ- হুম দালাল না তো কি তাহলে ? তুই বল, কেই এই আশরাফুল আলম খোকন?

– হুম দোস্ত, আমি অবশ্যই খোকন ভাইকে চিনি জানি। তবে আমি যতোটুকু চিনি, জানি
সহজ ভাষায় বলতে গেলে TV-তে RIN DETERGENT POWDER এডভেটাইজটার মতোই ।
“আদর্শ ও কাপড়ে কখনো দাগ লাগতে দেয় না”

-তবে হ্যা তোর কথাও সত্যি, খোকন ভাই আসলেই দালাল,তবে বাংলাদেশের দালাল। দেশ ও জাতির মঙ্গলের জন্য দালালি করেন।

বিয়ের দুই মাস পর যখন কেয়া দুরারোগ্য ব্লাড ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছিলো । কেয়ার। চিকিৎসার জন্য ২০ লক্ষ টাকা খোকন ভাই-ই ভিক্ষা করে জমা করেছিলেন। কেয়ার প্রাণ বাঁচানোর জন্য দালালী করেছিলেন।

সাতক্ষীরার ছোট্ট রিকশাচালক শাহিনের কথা নিশ্চই মনে আছে? ছিনতাইকারীরা তাকে যখন কুপিয়ে জটিল অবস্থায় রাস্তায় পেলে গেছিলো। আমরা তখন ফেসবুকে দুই এক লাইন দুঃখ প্রকাশ করে ঘুমিয়ে পড়ছিলাম। তখন খোকন ভাই ও আরো কয়েকজন মিলে, রাত জেগে দালালী করে শাহীনকে ঢাকায় এনে উন্নত চিকিৎসা করেছিলেন। গরীব অসহায় শাহিনকে বাঁচানোর জন্য দালালী করেছিলেন। এমন অনেক উদাহরণ দেওয়া যাবে। বলতে গেলে কতো কথা, যথা অযথা ।

দোস্ত তুই সত্যিই বলেছিস, খোকন আসলেই দালাল।
২০১০ সালে যখন এই ফেসবুকের ৯৫ জনই বাংলিশে বাংলা স্ট্যাটাস লিখতো, তখনই ভাইকে দেখতাম যোদ্ধাঅপরাধীর ফাঁসি চাই, ফাঁসি চাই বলে সারাদিনই চিল্লাচিল্লি করতো। আর জামাতিরা তখন দালাল বলে গালিগালাজ করতো। খোকন ভাই আসলেই বাংলাদেশের দালাল।

লেখক – তারেক চৌধুরী

Follow me on Twitter

%d bloggers like this: